একজন প্রবাসী রাতের আঁধারে কেন কাঁদে জানেন?

February 10, 2017 12:02:AM

কামরুল হাসান: যখন প্রিয় বাবা-মা সন্দেহ করে বলেন,”তোর কাছে আরো টাকা আছে”। বর্তমানে ৮৫% বাবা-মা বিবাহিত প্রবাসীদের সন্দেহ করে যে তারা সব টাকা শ্বশুরবাড়িতে দেয়। এই নিয়ে বউয়ের সাথে ঝগড়া আর ঝগড়া। এটা তারা বোঝতে চায় না যে একজন প্রবাসীর কাছে তার বাবা-মা,ভাইবোন,নিজের সন্তান,স্ত্রী ছাড়া পৃথিবীতে আর কেউ, কখনোই, কোনভাবেই আপন হয় না। একজন প্রবাসীর বাড়িতে পাঠানো টাকা নিয়ে ঝগড়ার পর, প্রবাস জীবন হয় তার জন্য নরক যন্ত্রণাসম। আর তখন একজন প্রবাসী বোঝে যে তার জন্য এই পৃথিবীতে বেঁচে থাকা কত কষ্টের। ফলে তাকে রাত জেগে চুপিসারে সহকর্মী বা রুমমেটদের আড়ালে অশ্রু বিসর্জন দিতে হয়। এটা কি কোন প্রবাসীর নিকটাত্মীয়রা বোঝেন?
অনেক প্রবাসীকেই দেখেছি তারা রাতে কাঁদেন। বউকে ফোন দিলে বউ বলে তুমি তো কাপুরুষ! তুমি তোমার পরিবারকে কিছু বলনা তোমার কারণে তোমার ফ্যামিলি মেম্বার আমার পরিবারকে মিথ্যা অপবাদ দেয়।
আবার এমন অনেক বাবা-মা আছেন, যারা তাদের প্রবাসী ছেলেকে বলেন, “তুই বেঈমান, তুই বউ ও শ্বশুর বাড়ির কথায় চলস। আমাদের কথা শুনোস না। ”
আর এই যন্ত্রণার মাঝে প্রবাস জীবন যে কত কষ্টের তা লিখে প্রকাশ করার কোন ভাষা আবিস্কৃত হয়নি। অথচ মাস শেষে ৯৫% প্রবাসীই তাদের বেতনের টাকাটা পরিবারের কাছে মানে মায়ের,ভাইয়ের,বোনের কাছে পাঠায়। কারণ পৃথিবীতে কোন প্রবাসী সন্তানই পারে না তাদের বাবা-মাকে ভুল বোঝতে। আর এটা যে প্রবাসীর বাবা-মা না বোঝে, সেই প্রবাসীর জীবন হয় পৃথিবীতে মরে বেঁচে থাকা অর্থাৎ কোমায় থাকা।
আর বিবাহিত প্রবাসীর বউ এর সকল কিছুতেই দোষ। সে বাপের বাড়ির আত্মীয়-স্বজনকে বেশী নজর করে, বাপের বাড়ি থাকে বেশী, টাকা খরচ করে বেশী, ফোনে কথা বলে বেশী। কোন কিছু কেনাকাটা করতে গেলে তো আরো একমহাসমুদ্র ঝামেলা। একা একা বাজারে যায়, মার্কেটে যায় ইত্যাদি নিত্যকার র্ভৎসনা। দেবর-শ্বাশুরি, ননদ একচোখ এবং এককান খাড়া করেই রাখে যে বউ কখন কি বলে, কি কাজ করে। সব বউই যে খারাপ না একথা কোন শ্বাশুড়িই বোঝে না।
সব শেষে সকল প্রবাসী ভাইদের বলি বাড়ির চিন্তা করে নিজেকে কষ্ট দিবেন না। আপনি আপনার দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করুন, দেখবেন মহান আল্লাহ আপনার জন্য ভালো কিছুর ব্যবস্থা করে রেখেছেন। এপারে না পেলে ওপারে পাবেন। বাবা-মায়ের সকল কথা বিশ্বাস করা যেমন প্রয়োজন তেমনি বউয়ের কথাও বিশ্বাস করা প্রয়োজন। হয়ত পারে দু’জনই দুজায়গায় সঠিক আর আপনি আছেন মাইনকা চিপায়। তাই আপনাকে যে কোন ক্ষেত্রেই সঠিক সিদ্ধান্তটি নিতে হবে, সঠিক কথা বলতে হবে। (সকল মা কিংবা বউই কিন্তু ভুল-ত্রুটির উর্ধ্বে নয়)।
লেখক: কাতার প্রবাসী
(লেখকের আবেগ যথাযথ প্রকাশের স্বার্থে লেখাটি কোথায়ও ভাষা বা শব্দ পরিবর্তন করা হয়নি)

Related Post